মঙ্গলবার, ২০-আগস্ট ২০১৯, ০৭:৫১ অপরাহ্ন
  • জাতীয়
  • »
  • রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিশ্ব সম্প্রদায় দায়িত্ব পালন করবে না, আশঙ্কা পরিকল্পনামন্ত্রীর 

রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিশ্ব সম্প্রদায় দায়িত্ব পালন করবে না, আশঙ্কা পরিকল্পনামন্ত্রীর 

shershanews24.com

প্রকাশ : ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ০৮:৪৮ অপরাহ্ন

শীর্ষকাগজ, ঢাকা : চলমান রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ও সংস্থা দায়িত্ব পালন করবে না বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

মঙ্গলবার (১২ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশের (আইডিইবি) ভবনে ‘রোহিঙ্গা ক্রাইসিস : গ্লোবাল চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক এক সেমিনারে তিনি এ আশঙ্কার কথা জানান।

এম এ মান্নান বলেন, ‘মিয়ানমার আমাদের প্রতিবেশী। আমরা বিশ্বাস করি, ধৈর্যের সঙ্গে, সহিষ্ণুতার সঙ্গে কথাবার্তা বলে…। বিশ্বের যারা আছেন, জাতিসংঘ ও এর বিভিন্ন সংস্থা এবং দেশকে নিয়ে, আশিয়ানের যারা সদস্য, এর মধ্যে মিয়ানমার রয়েছে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, আরও অনেকেই আছে। আমি আশা করছি, সারা বিশ্বকে নিয়ে... তবে একটা কষ্টের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে যে, সম্ভবত তারা এই দায়িত্ব পালন করবে না।’

মিয়ানমারসহ সব দেশের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রাখা বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতির মূল কথা বলেও উল্লেখ করেন মন্ত্রী। এম এ মান্নান বলেন, ‘আমরা আশা করছি, সমাধান হবে। আমরা আলোচনায় বিশ্বাস করি। প্রতিবেশীদের সঙ্গে আমরা যোগাযোগ ভালো করতে চাই, এটাই আমাদের পররাষ্ট্রনীতির মূল কথা। সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারো প্রতি বিরক্ত নয়, সেটাই মূলনীতি। সেটাকে ধরে আমরা কূটনৈতিক সূত্রে আলোচনা করে, সব প্রতিবেশীর সঙ্গে…। ভারতের সঙ্গে আমাদের একবার সমস্যা হয়েছিল, আলোচনা করে সমাধান করেছি।’

তিনি বলেন, ‘কিন্তু বিষয়টা হলো আমি মনে করি, ঠান্ডা মাথায়, খুব ধৈর্যের সঙ্গে ডিপ্লোমেটিক চ্যানেলের মাধ্যমে আলোচনা করে সমাধান করতে পারব বলে আশা করি। সেই বিশ্বাস আমাদের আছে। কারণ, শেষ বিচারে তাদের কাছে আমাদের থাকতেই হবে।’

এর কারণ ব্যাখ্যা করে এম এ মান্নান বলেন, ‘মিয়ানমার আমাদের আজকের প্রতিবেশী নয়, হাজার কোটি বছরের প্রতিবেশী। ঠিক যেমন ভারত আমাদের, সবাই আমাদের প্রতিবেশী। প্রকৃতিগতভাবে এটা সৃষ্টি হয়েছে। আমরা চাইব, আলোচনার মাধ্যমে এর সমাধান করার।’

রোহিঙ্গাদের ক্ষতি মূল্যে বিচার করা সম্ভব নয় বলেও মনে করেন পরিকল্পনামন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘হিসাব-নিকাশ করে তাদের কত ক্ষতি হয়েছে, তা মার্কিন ডলারের মাধ্যমে মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে। আসল মূল্য বিচার করা সম্ভব নয়। ঘর ছাড়ার যে ব্যথা, লাঞ্ছিত হয়েছে, ধর্ষণ হয়েছে, ঘর জ্বালানো হয়েছে– এগুলোর মূল্য দেয়া সম্ভব নয়।’
শীর্ষকাগজ/এসএসআই