রবিবার, ১৮-আগস্ট ২০১৯, ১১:০৭ অপরাহ্ন
  • স্বাস্থ্য
  • »
  • স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে দুর্নীতি: আরো ৫ কর্মচারীকে দুদকে তলব

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে দুর্নীতি: আরো ৫ কর্মচারীকে দুদকে তলব

shershanews24.com

প্রকাশ : ১৬ জানুয়ারী, ২০১৯ ০৪:৪০ অপরাহ্ন

শীর্ষকাগজ, ঢাকা: স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে দুর্নীতি চক্রের সাথে জড়িত থেকে শত কোটি টাকা অর্জনের অভিযোগে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির আরো পাঁচজনকে ২২ জানুয়ারি জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।
বুধবার দুদকের উপ-পরিচালক শামসুল আলম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করা হয়েছে। 
যাদেরকে তলব করা হয়েছে তারা হলেন- ফরিদপুর টিবি হাসপাতালের ল্যাব এটেনডেন্ট বেলায়েত হোসেন, জাতীয় অ্যাজমা সেন্টারের হিসাবরক্ষক লিয়াকত হোসেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের গাড়িচালক রকিবুল ইসলাম, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উচ্চমান সহকারী বুলবুল ইসলাম ও খুলনা মেডিকেল কলেজের অফিস সহকারী শরিফুল ইসলাম।
সূত্রে জানা গেছে, যাদেরকে তলব করা হয়েছে তারা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মেডিকেল এডুকেশন শাখার চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী আবজাল হোসেনের বিভিন্ন আত্মীয়-স্বজন।
আবজাল হোসেনের জালিয়াতির বিষয়ে দুদকের তথ্য অনুযায়ী, ৩০ হাজার টাকার বেতন পেলেও ঢাকার উত্তরায় তিনি ও তার স্ত্রীর নামে বাড়ি আছে পাঁচটি। আরেকটি বাড়ি আছে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে। আর রাজধানী ছাড়াও দেশের বিভিন্ন এলাকায় আছে অন্তত ২৪টি প্লট ও ফ্ল্যাট। দেশে–বিদেশে আছে বাড়ি–মার্কেটসহ অনেক সম্পদ। এসব সম্পদের বাজারমূল্য হাজার কোটি টাকারও বেশি।
দুদকের অনুসন্ধানে আরও দেখা গেছে, আবজাল হোসেন গত এক বছরে সিঙ্গাপুর, অস্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন দেশে ২৮ বারেরও বেশি সপরিবারে সফর করেছেন। অস্ট্রেলিয়ার সিডনির পর্টার স্ট্রিট মিন্টুতে যে বাড়ি কিনেছেন, তার দাম দুই লাখ ডলারেরও বেশি। এই অভিযোগে গত বৃহস্পতিবার তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক।
এ ছাড়া একই ধরনের ঘটনায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (বাজেট) আনিসুর রহমানকে গত সোমবার দুদক জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। অধিদপ্তরের আরও দুই পরিচালককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করা হলেও তারা সময় চেয়ে আবেদন করেছেন। তারা হলেন-পরিচালক ডা. কাজী জাহাঙ্গীর হোসেন ও অধ্যাপক ডা. আবদুর রশীদ।
দুদকের অভিযোগে বলা হয়েছে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে একটি সিন্ডিকেট করে সীমাহীন দুর্নীতির মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা আত্মসাতের ঘটনা ঘটেছে। এ ছাড়া বিদেশে অর্থ পাচার ও জ্ঞাত আয়বহির্ভুত অর্জনের অভিযোগ রয়েছে উল্লিখিতদের বিরুদ্ধে।
শীর্ষকাগজ/এনএস