সোমবার, ২৬-আগস্ট ২০১৯, ১২:২৯ পূর্বাহ্ন
  • এক্সক্লুসিভ
  • »
  • ফেনী সদর উপজেলা নির্বাচনে ইভিএমের নামে যা হলো (ভিডিও)

ফেনী সদর উপজেলা নির্বাচনে ইভিএমের নামে যা হলো (ভিডিও)

shershanews24.com

প্রকাশ : ৩১ মার্চ, ২০১৯ ০৮:৩৩ অপরাহ্ন

শীর্ষ কাগজ, ফেনী: উপজেলা পরিষদের চতুর্থধাপের নির্বাচনে ১০৬ উপজেলা ভোট হয়েছে রোববার। এবারের ভোটেও ভোটারদের উপস্থিতি ছিলো হতাশাজনক। তবে ভোটার সংকট থাকলেও অনিয়মের শেষ ছিলো না অন্য নির্বাচনগুলোর মতো। ফেনী সদর উপজেলায় ভোট নেয়া ইভিএমে।  কিন্তু তাতেও কারচুপি থামেনি। ইভিএমের এই ভোট রাতের ভোটের চেয়েও খারাপ হয়েছে বলে সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেছেন আনারস মার্কার প্রার্থী আজহারুল হক আরজু। ভোটের নানা অনিয়মে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে তিনি বলেছেন, ‘রাতের অন্ধারে ভোট হওয়ার চেয়েও জঘন্য ভোট হয়েছে ফেনী সদরে। এখানে সিইসি মহোদয় এসে সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের নির্দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু এখানে ভোটার একজন বাটন টিপে আরেকজন। এটি গোটা ফেনী সদরের চিত্র। গতকাল শর্শদি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে প্রতিটি কেন্দ্রে হামলা হয়েছে। এই চেয়ারম্যান বলেছেন তার কেন্দ্রে তিনি অন্য কাউকে ভোট দিতে দেবেন না। এটি তার মান সম্মানের ব্যাপার। এটি বলে তিনি নিজে ভোট কেন্দ্রে ইভিএমের বাট টিপেছেন।’
আনারস মার্কার প্রার্থী আজহারুল হক আরজু এ সময় বলেন, ‘তাহলে এখানে সিইসি মহোদয় আসার কী দরকার ছিলো? ইভিএম দিয়েও লাভ হলো কী? প্রতিটি কেন্দ্রে দু’জন সেনা সদস্য আছে মুনে ভোটার মধ্যে আগ্রহ তৈরি হয়েছিলো যে- এবার বুঝি নিজের ভোট নিজে দিতে পারব। আমরা প্রার্থীরাও বলেছিলাম।কিন্তু ইভিএমের নামে ভোট ডাকাতি হয়েছে। এতে সরকারের অর্থ নষ্ট হয়েছে। সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে। আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে। এই ভোটের কোনো দরকার ছিলো না। ইউপি চেয়ারম্যানরা বিভিন্ন কেন্দ্রে ঘুরে ঘুরে টিপতেছে। ফিঙ্গারিং করছেন একজন বাটন টিপতেছেন উনি।’
আরজু বলেন, ‘ প্রিজাইডিং অফিসার বলছেন আমি দেখতেছি। উনি কী দেখবেন? উনি তো স্থানীয় গু-াদের চেয়ে বড় নন। এসপি সাহেব বলেছিলেন দেখামাত্র গুলি, কিন্তু প্রতিটি কেন্দ্রে ভোট ডাকাতি হচ্ছে।’

শীর্ষ কাগজ